4140

06/14/2021 বাঘের প্রিয় সুন্দরবনের কটকা টাইগার টিলা

বাঘের প্রিয় সুন্দরবনের কটকা টাইগার টিলা

সুন্দরবন থেকে ফিরে জুনায়েদ আলী সাকী

১২ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৮:১৯

জঙ্গলে গিয়ে নিজের চোখে বাঘ দেখা সহজ নয়। বনের বাঘ দেখতে চাইলে ঝুঁকি নিতে হয় জীবনের। যারা অ্যাডভেঞ্চার ভালবাসেন, তাদের কাছে সুন্দরবনে গিয়ে রয়েল বেঙ্গল টাইগার দেখা কঠিন কাজ নয়। এমন এক অ্যাডভেঞ্চারে আমরা নিউজফ্ল্যাশের কয়েকজন হলাম সহযাত্রী। গন্তব্য কটকার টাইগার টিলা। বলেশ্বরের মোহনায় সাগর উপকূলে বন বিভাগের অভয়ারণ্যে বাঘের আনাগোনা বেশি।

সুন্দরবন প্যাকেজ ট্যুরের অন্যতম পরিচিত মুখ ব্লুবার্ড ট্যুরস এর মালিক মাসুদ পারভেজ পরাগ জানান, আগের তুলনায় সুন্দরবনে যাওয়া এখন সহজ। ভ্রমনকারীদের জন্য শিল্প নগরী খুলনা থেকে রওনা করে পর্যটকবাহী বেশ কিছু নৌযান। আরামদায়ক থাকার জায়গা, সুস্বাদু খাবার-সহ বিশেষ সুবিধা আছে এসব নৌযানে।

সমুদ্রবন্দর মংলা থেকে কটাকার টাইগার টিলা যেতে সময় লাগে প্রায় ঘন্টা। তবে অবশ্যই জোয়ার-ভাটার সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হয়। নইলে সময় লাগে আরও বেশি।

সাগর পাড়ে সুন্দরবনের খালগুলো বেশ শান্ত, পানিও স্বচ্ছ। তবে ভূ-ভাগের ঢাল দীর্ঘ। তাই খালের মাঝে নোঙ্গর করা নৌযান থেকে ইঞ্জিন চালিত নৌকায় যেতে হয় কটাকার টাইগার টিলায়। দূর থেকে মনে হয়, যেন হাতছানি দিয়ে ডাকছে বনের সারি সারি বৃক্ষরাজি।

সাগর উপকূলে কটকা অভয়ারণ্যে বন বিভাগের অফিস। অফিসের পাশ দিয়ে পায়ে হেটে টাইগার টিলা যেতে সময় লাগে প্রায় ১৫ মিনিট। গাছাগাছালির ঘনত্বের কারণে সূর্যের আলো ঠিকমত পৌছায়না। চলার পথে চোখে পড়ে বাঘের পায়ের ছাপ।

পর্যটন মৌসুম শীতকালে নম্বর টাইগার টিলায় প্রতিদিনই পর্যটকদের আনাগোনা থাকে। তাদের সাথে থাকে বন বিভাগের বন্ধুকধারী নিরাপত্তারক্ষী। তাই মানুষের কোলাহল থাকলে, বাঘ আসতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে না এখানে।

এনএফ৭১/জুআসা/২০২১

সম্পাদক : আবু জাফর সুর্য
যোগাযোগ: বাড়ি-৫৪৮, রোড-১৩, বারিধারা ডিওএইচএস, ঢাকা-১২০৬
ফোন: ০২ ৮৪১৮০৭৬
ইমেইল: [email protected]